মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

নূর মানিকচর জামে মসজিদ

দেবীদ্বারের সবচেয়ে পুরাতন মসজিদ নূরমানিকচর মসজিদ, যার বয়স প্রায় পাঁচশত বছর। জানা যায়, পঞ্চদশ শতাব্দীর আগে মরহুম সৈয়দ নূর আহমেদ কাদেরী পীর সাহেব এ মসজিদ নির্মান করে গেছেন। সৈয়দ নূর আহমেদ কাদেরী পীর সাহেব'র নামানুসারে ওই গ্রামের নামকরণ করা হয় নূরমানিকচর গ্রাম।
আজ থেকে কত বছর আগে দেবীদ্বারে কে বা কারা ইসলামের আলো জ্বেলেছিলেন তার কোন দিক নির্দেশনা পাওয়া যায়নি। তবে ঐতিহাসিক মসজিদগুলোর দিকে খেয়াল করলে সহজেই বুঝা যায় এখানকার মুসলিম সভ্যতা অনেক দিনের পুরনো। কারন এক/দু'জন লোক মুসলমান হলে সেখানে পাকা বা অন্যভাবে নিত একটি মসজিদ গড়ে উঠেনা। সম্মিলিত ভাবে জুম্মার নামাজ আদায়ের জন্য প্রয়োজন একটি মুসলিম সমাজ। এমনই একটি মুসলিম সমাজের চিত্র পাওয়া যায় কুমিল্লার দেবীদ্বার উপজেলার নূরমানিকচর গ্রামে।
এখানে নূরমানিকচর মসজিদ নামে দির্ঘ দিনের একটি পুরনো মসজিদ রয়েছে। এ মসজিদটি সাতগম্ভুজ বিশিষ্ট। মসজিদটির দৈঘর্্য ১০ফুট, প্রস্থ্য ৫ফুট। একসঙ্গে ২০/২৫জন নামাজ আদায় করতে পারেন। চুন-সুরকী দিয়ে নিমর্ীত মসজিদটির ভেতরে অপরম্নপ কারম্নকাজ রয়েছে। মসজিদের ছাদে রয়েছে ১১টি গম্বুজ, এর মধ্যে মূল ছাদে রয়েছে ৭টি এবং বাকী চারটি গম্বুজ রয়েছে মসজিদের চারকোণায়। তবে সংরৰন ও সংস্কারের অভাবে সবকটি গম্বুজই ধ্বংশ প্রায়। সুষ্ঠভাবে পরিচর্যা না করায় মসজিদের বাহিরের আসত্দরগুলো নষ্ট হয়ে গেছে। অধিকাংশ জায়গা থেকে আসত্দরগুলো খসে পড়ছে। বৃষ্টির পানিতে মসজিদের দেয়ালে সেওলা জমে মসজিদের শ্রী'নষ্ট হয়ে গেছে। ছাদের অবস্থা আরো খারাপ। যে কোন সময় দূর্ঘটনা ঘটতে পারে। নূরমাকিচর মসজিদটি কুমিল্লাশহর থেকে পশ্চিমে ১৮কিলো মিটার দূর এবং 'ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক'র নূরমানিকচর বাস স্টেশনের আধা কিলোমিটার উত্তরে অবস্থিত।
স্থানীয়রা জানান, সমসজিদের প্রতিষ্ঠাতা সৈয়দ নূর আহম্মেদ আল কাদেরী পীর সাহেব একজ ধর্মপ্রাণ ও দানবীর ছিলেন। তিনি মসজিদ ছাড়াও ডাকঘর, মক্তব,পাঠশালা, ও দিঘী নির্মান করে গেছেন। মসজিদটি রৰা করতে হলে অনতিবিলম্বে এর সংস্কার প্রয়োজন। তারা আরো দাবী করেন যে, মসজিদটি মুসুলস্নী সংকুলান না হলেও এটি এ এলাকার ঐতিহ্য। এটি সরকারীভাবে প্রত্নত্ত্ব বিভাগ কতর্ৃক রৰা ও সংস্করণ প্রয়োজন।

 

ইতিহাস সংগ্রহে: এবিএম আতিকুর রহমান বাশার